আজ, শুক্রবার | ৬ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৯শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং | সন্ধ্যা ৬:৫৭                                                                          

ব্রেকিং নিউজ :
মাগুরায় রাষ্ট্রিয় মর্যাদায় মুক্তিযোদ্ধা জাহিদুল ইসলাম বাকু’র দাফন সম্পন্ন মাগুরায় ১৩ শত টাকার জন্যে ব্যবসায়ীর বিষপানে মৃত্যু : সুদে কারবারিকে ৫৪ ধারায় গ্রেফতার মাগুরা কালেক্টরেট প্রাঙ্গণে চলছে শিশু আনন্দমেলা ও সাংস্কৃতিক উত্সব মহম্মদপুরে ব্যাংক এশিয়ার শাখা উদ্বোধন নুসরাত হত্যাকাণ্ড : মাগুরার রাস্তায় স্কুল শিক্ষার্থিদের বিক্ষোভ মাগুরায় আনন্দের আতিশয্যে জুতা পায়ে শহীদ মিনারে! মাগুরায় ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক চাষিদের মধ্যে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ মাগুরায় কালো কাপড়ে মুখ বেধে নারীদের প্রতিবাদ মাগুরায় সুরসপ্তকের পহেলা বৈশাখ উদযাপন মাগুরায় পহেলা বৈশাখ উদযাপন
রেলপথ মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ রেলওয়ে

রেলপথ মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ রেলওয়ে

মাগুরা প্রতিদিন ডেস্ক : রেল গাড়ীতে কেউ চড়ুক বা না উঠুক, এর প্রতি অধিকাংশ মানুষের আকর্ষণ কিংবা আগ্রহ রয়েছে। বাঙ্গালীরা এর ব্যতিক্রম নয়। ছোট বড় সবার স্মৃতিতেই রেলগাড়ী একটি বিশেষ জায়গা রয়েছে।

রেলওয়ে বাংলাদেশের সবচেয়ে পুরনো পরিবহন সংস্থা । ১৮৬২ সালের ১৫ নভেম্বর চুয়াডাংগা জেলার দর্শনা থেকে কুষ্টিয়া জেলার জগতি পযর্ন্ত ৫৩:১১ কি:মি: ব্রডগেজ রেল লাইন চালুর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে রেলওয়ে যাত্রা শুরু হয়।

রেল খাতের টেকসই উন্নয়ন এবং সেবার মানোন্নয়নের মাধ্যমে জাতীয় ও আঞ্চলিক পর্যায়ে বর্তমান ও ভবষ্যিত্ রেল পরিবহন চাহিদা মেটাতে রেলপথ মন্ত্রণালয় অঙ্গীকারবদ্ধ। বাংলাদেশ রেলওয়ে এবং সরকারি রেলপথ পরিদর্শন অধিদপ্তর রেলপথ মন্ত্রণালয়াধীন দুটি সংস্থা রয়েছে ।

রেলপথ মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ রেলওয়ের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস-
১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধে রেলওয়ের সম্পদ ও জনবলের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়।

স্বাধীনতা পরবর্তীতে যুদ্ধ বিদ্ধস্ত রেলযোগাযোগ ব্যবস্থা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাত ধরে নতুন যাত্রা শুরু হয়।
বাংলাদেশ রেলওয়ে ১৯৭২ সাল পর্যন্ত “রেলওয়ে বোর্ড” কর্তৃক পরিচালিত হতো এবং ১৯৭৩ সালে “যোগাযোগ মন্ত্রণালয়” এর সাথে রেলওয়ে সংযুক্ত হয়।
তত্কালীন ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একক নির্দেশনায় যমুনা নদীর উপর নির্মিত বঙ্গবন্ধু সেতুতে ১৯৯৮ সালের ২৩ জুন রেল সংযোগ চালু করার ফলে পশ্চিমাঞ্চলের সাথে পূর্বাঞ্চল রেলওয়ের সরাসরি যোগাযোগ স্থাপিত হয়।

২০১১ সালের ৪ ডিসেম্বর যোগাযোগ মন্ত্রণালয় হতে “রেলপথ মন্ত্রণালয়” গঠন করা হয়।
বাংলাদেশ রেলওয়ে পূর্ব ও পশ্চিম, এ দুটি অঞ্চলে বিভক্ত করা হয়েছে।
পূর্বাঞ্চলের সদর দপ্তর চট্টগ্রামে আর পশ্চিমাঞ্চলের রাজশাহীতে।

বাংলাদেশ রেলওয়ে, ঢাকা, চট্টগ্রাম, পাকশী (পাবনা) ও লালমনিরহাট-এ চারটি বিভাগে বিভক্ত।
বাংলাদেশের ৪৪টি জেলায় রেলপথ রয়েছে. আরো ১৩টি জেলায় রেলপথ নেটওয়ার্কের সম্প্রসারণের কাজ চলছে (মুন্সীগঞ্জ, মাদারীপুর, শরিয়তপুর, বরিশাল, পটুয়াখালী, বরগুনা, ঝালকাঠি, মেহেরপুর, সাতক্ষীরা, নড়াইল, মাগুরা, বান্দরবান ও কক্সবাজার)। ২০৪৫ সাল নাগাদ অন্যান্য জেলাকেও রেলপথ নেটওয়ার্কের আওতায় আনা হবে (লক্ষীপুর, শেরপুর, রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ও ভোলা)।

রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলে ২১৫১.৭৯ কিঃমিঃ ও পশ্চিমাঞ্চলে ২১৮৯.৭৯ কিঃমিঃ মোট ৪,৩৪১.৫৮ কিঃ মিঃ রেল লাইন রয়েছে।

সারাদেশে মোট ৪৬৭টি স্টেশন, ১৮০২ টি লেভেল ক্রসিং গেইট রয়েছে। রয়েছে ২০৭টি সচল লোকোমোটিভ ও ৬৩ টি অচল।

বাংলাদেশে ব্রডগেজ ও মিটার গেজ দুই ধরণের রেলপথ রয়েছে। ব্রড গেজের দৈর্ঘ পাশাপাশি ১মিটারের বেশী ও মিটার গেজের দৈর্ঘ্য ১মিটারের কম।

বাংলাদেশ রেলওয়ের ২০৬টি মিটার গেজ ও ১৪৮টি ব্রডগেজসহ মোট ৩৫৪টি যাত্রীবাহী ট্রেন আছে যার ৬টি আন্ত:দেশীয় ও ৯০টি আন্ত:নগর।

রেলওয়েকে একটি জনবান্ধব পরিবহন ব্যবস্থা হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে বর্তমান সরকার ৩০.০৬.২০১৩ তারিখে ২০ বছর মেয়াদী একটি মাস্টার প্ল্যান অনুমোদন করে।মাস্টার প্ল্যানে (২০১৬–২০৪৫) ৬ টি পর্যায়ে বাস্তবায়নের জন্য ৫,৫৩,৬৬২ কোটি টাকা ব্যয়ে মোট ২৩০টি প্রকল্প অর্ন্তভূক্ত রয়েছে। সরকারের পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার সাথে সঙ্গতি রেখে রেলওয়ে মাস্টার প্ল্যানে অর্ন্তভূক্ত প্রকল্প পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

  • এক নজরে বাংলাদেশ রেলওয়েঃ
    -সারাদেশে চলাচলকারী যাত্রীবাহী ট্রেনের সংখ্যা- ৩৫০ টি।
    -মোট আন্তঃনগর ট্রেন- ৯০টি।
    -মোট মেইল এক্সপ্রেস এবং কমিউটার ট্রেন- ১৩২ টি।
    -মোট লোকাল ট্রেন- ১২৬ টি।
    -পূর্বাঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চলের মধ্যে চলাচলকারী মোট আন্তঃনগর ট্রেন- ২৪ টি।
    -পূর্বাঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চলের মধ্যে চলাচলকারী মোট মেইল ও এক্সপ্রেস ট্রেন- ০২টি।
    -পূর্বাঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চলের মধ্যে চলাচলকারী লোকাল ট্রেন- ০২টি।
    -আন্তঃদেশীয় ট্রেন (বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে চলাচলকারী মৈত্রী ও বন্ধন এক্সপ্রেস)- ০৪টি।
    -সর্বমোট স্টেশন- ৪৬০টি।
  • বাংলাদেশ রেলওয়ের সাম্প্রতিক অর্জন সমূহ:
    -বর্তমান সরকারের আমলে ২০০৯ থেকে অদ্যাবধি বাংলাদেশ রেলওয়ের অর্জিত সাফল্যের সার-সংক্ষেপ:
    -নতুন রেল লাইন নির্মাণ ৩৩০.১৫ কি: মি:
    -মিটারগেজ রেল লাইন ডুয়েলগেজে রূপান্তর ২৪৮.৫০ কি: মি:
    -রেল লাইন পুনর্বাসন/পুন: নির্মাণ ১১৩৫.২৩ কি:মি:
    -স্টেশন বিল্ডিং নতুন নির্মাণ ১টি
    -স্টেশন বিল্ডিং পুনর্বাসন/পুন: নির্মাণ ১৭৭টি।
    -নতুন রেল সেতু নির্মাণ ২৯৫টি।
    -রেল সেতু পুনর্বাসন/পুন:নির্মাণ ৬৪৪টি।
    -লোকোমোটিভ সংগ্রহ ৪৬টি (২০টি এমজি ও ২৬টি বিজি) এবং ২০ সেট ডিইএমইউ।
    -যাত্রীবাহী ক্যারেজ সংগ্রহ ২৭০ (১৭০টি বিজি ও ১০০টি এমজি)
    -যাত্রীবাহী ক্যারেজ পুনর্বাসন ৪৩০টি ।
    -মালবাহী ওয়াগন সংগ্রহ ৫১৬টি এবং ৩০টি ব্রেক ভ্যান।
    -মালবাহী ওয়াগন পুনর্বাসন ২৭৭ টি।
    -সিগন্যালিং ব্যবস্থা উন্নয়ন ও আধুনিকিকরন ৯০টি স্টেশন।
    -সিগন্যালিং ব্যবস্থা পুনর্বাসন ৯টি স্টেশন।
    -নতুন ট্রেন চালুকরণ ১১৭টি।
    -চলমান ট্রেন সার্ভিস বর্ধিতকরন ৩৬টি
    -হুইল লেদ মেশিন (ডুয়েলগেজ) স্থাপন ১টি।
    -বঙ্গবন্ধু সেতুর নিরাপত্তা নিশ্চিতকরনের জন্য লোড মনিটরিং ডিভাইস সংগ্রহ ২টি।
    -দুর্ঘটনা রিলিফ ক্রেন সংগ্রহ ২টি।
    -বন্ধ রেলওয়ে সেকশন চালুকরণ ২টি (কালুখালী-ভাটিয়াপাড়া ও পাঁচুরিয়া-ফরিদপুর)
    -অন লাইন এবং মোবাইল টিকেটিং চালুকৃত
    -ট্রেনে ট্র্যাকিং ও মনিটরিং সিস্টেম এবং হেল্প লাইন (১৩১)চালুকৃত
  • বর্তমান বার্ষিক উন্নয়ন র্কমসূচি :
    বর্তমান (২০১৮-২০১৯)বার্ষিক উন্নয়ন র্কমসূচিতে বাংলাদেশ রেলওয়ের ৪০টি বিনিয়োগ প্রকল্প এবং ০৩টি কারিগরী প্রকল্প অন্তর্ভূক্ত রয়েছে উক্ত ৪০টি বিনিয়োগ প্রকল্পের মধ্যে জিওবি র্অথায়নে ২১ টি এডিবি অর্থায়নে ৬টি জাইকা অর্থায়নে ২টি ডিআরজিএ অর্থায়নে ২টি এলওসি অর্থায়নে ৫টি ইডিসিএফ অর্থায়নে ১টি ভারতীয় সরকারের অনুদানে ১টি টেন্ডারার্স ফাইন্যান্সিং ১টি এবং চায়না অর্থায়নে ১টি প্রকল্পের বাস্তবায়ন চলমান রয়ছে। এছাড়া জিওবি অর্থায়নে ১টি এবং এডিবি অর্থায়নে ২টি কারিগরী প্রকল্পের বাস্তবায়ন চলমান রয়েছে।
    (গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের রেলওয়ে মন্ত্রীর পিএস জনাব মোহাম্মদ আতিকুর রহমানের ফেসবুক ওয়াল থেকে সংগৃহিত)

শেয়ার করুন...




©All rights reserved Magura Protidin.
IT & Technical Support :BiswaJit