আজ, মঙ্গলবার | ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ২০শে অক্টোবর, ২০২০ ইং | সকাল ৬:৫৯

ব্রেকিং নিউজ :
মাগুরার দুরাননগরে যুবকদের শ্রম বিক্রির অর্থে দরিদ্র মানুষের ঘরে ত্রাণ মহামারি করোনা : হেসে উঠুক আমাদের ভালবাসার পৃথিবী মাগুরায় করোনা রোগী: ভয় নয়, আরও দায়িত্বশীল হই চাউলিয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে ত্রাণ নিয়ে অসহায় মানুষের পাশে সাহেব আলি ছকাতি মাগুরায় ঢাকা থেকে ফেরা আরো এক যুবক করোনা আক্রান্ত গ্রাম লক ডাউন ঘোষণা মাগুরায় ৫ শতাধিক ইমাম মোয়াজ্জিনের মধ্যে এমপি শিখরের নগদ অর্থ ও খাদ্য সহায়তা প্রদান মাগুরায় আশুলিয়া থেকে ফেরত যুবক করোনায় আক্রান্ত গ্রাম লকডাউন মাগুরায় ইঞ্জিনিয়ার মিরাজের নেতৃত্বে ১৪শত পরিবারের মধ্যে ত্রাণ ও স্যানিটাইজার বিতরণ মাগুরাসহ যশোর অঞ্চলে জনসচেতনায় কাজ করে যাচ্ছে সেনা সদস্যরা করোনা প্রতিরোধে মাগুরা সিভিল সার্জনকে জাসদের ৭টি প্রস্তাব
মাগুরায় শিশু নিপীড়নকারী মাদরাসা শিক্ষক পলাতক

মাগুরায় শিশু নিপীড়নকারী মাদরাসা শিক্ষক পলাতক

মাগুরা প্রতিদিন ডটকম : মাগুরায় মহম্মদপুর উপজেলার ইন্দ্রপুর হাফেজিয়া মাদারাসার শিক্ষক মওলানা শরিফুল ইসলামের বিরুদ্ধে এক শিক্ষার্থিকে নিপীড়নের অভিযোগ উঠেছে। মাদরাসা পরিচালনা কমিটির কাছে অভিযোগ জানানো হলেও গত ৪ দিনেও তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় পরিবারের লোকজন ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

শিশুটির পরিবার এবং এলাকাবাসি জানায়, মহম্মদপুর উপজেলার নহাটা ইউনিয়নের ইন্দ্রপুর এতিমখানা ও হাফেজিয়া মাদরাসায় অন্তত ৩৫টি শিশুকে কোরআন শিক্ষা দেয়া হয়ে থাকে। যেখানে আবাসিক ছাত্রাবাসে ওইসব শিশুরা অবস্থান করে শিক্ষা গ্রহণ করে থাকে। কিন্তু ওই মাদরাসার শিক্ষক মওলানা শরিফুল ইসলাম গত সোমবার রাতে নয়ন (১২) নামে এক শিশুকে তার কক্ষে ডেকে নিয়ে বলাৎকারের চেষ্টা করে। এ ঘটনার পর রাতেই শিশুটি মাদরাসা ছেড়ে তার গ্রামের বাড়ি চাকুলিয়া ফিরে বাবার কাছে অভিযোগ করে। বিষয়টি জানতে পেরে এবং অবস্থা বেগতিক দেখে পরদিন মঙ্গলবার থেকেই মাদরাসা শিক্ষক শরিফুল ইসলাম পলাতক রয়েছে। এতে করে গত চারদিন ধরেই ওই এতিমখানা ও মাদরাসার শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।

শিশুটির বাবা চাকুলিয়া গ্রামের দরিদ্র কৃষক ইব্রাহিম জানান, আমার ছেলে ব্রাকের স্কুলে ৫ম শ্রেণীতে পড়াশোনা করতো। সেখান থেকে ছাড়িয়ে হাফেজ বানাবার জন্যে তাকে দুই বছর আগে মাদরাসাতে দিয়েছি। কিন্তু মাদরাসার হুজুর আমার ছেলের সঙ্গে বাজে কাজ করায় রাতের বেলা ছেলেটি কাঁদতে কাঁদতে হেটেই বাড়ি ফিরে এসেছে। এ বিষয়ে মাদরাসার সভাপতির কাছে নালিশ করলেও তিনি কোন ব্যবস্থা নেননি। উলটো তিনি মাদরাসার হুজুরকে নিরাপদে সরিয়ে দিয়েছে।

এ বিষয়ে মাদরাসার সভাপতি মওলানা কামরুল ইসলাম বলেন, ঘটনার পর থেকেই অভিযুক্ত শিক্ষক পলাতক থাকায় কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। তাছাড়া একজন মানুষ হিসেবে আরেকজন মানুষের দোষ ত্রæটি গোপন রাখা উচিত। বিধায় এ বিষয়ে থানা পুলিশ করা হয়নি।

মহম্মদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আসিফুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পাওয়া গেলে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

চারদিন ধরে পলাতক অভিযুক্ত মাদরাসা শিক্ষক শরিফুল ইসলাম নড়াইল জেলার লোহাগাড়া উপজেলার চাচই গ্রামের ফুলমিয়ার ছেলে বলে জানা গেছে।

শেয়ার করুন...




©All rights reserved Magura Protidin.
IT & Technical Support :BiswaJit