আজ, শনিবার | ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৫ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং | রাত ৩:০২                                                                          

ব্রেকিং নিউজ :
মহম্মদপুরের মোবারকপুর গ্রামে ঝোপ থেকে নারীর গলিত লাশ উদ্ধার মাগুরায় ইয়াবাসহ মাদক কারবারি রাজিবকে আটক করেছে র্যাব মাগুরায় বাড়িতে বাড়িতে চলছে তথ্য অফিসের উন্মুক্ত উঠোন বৈঠক ডুসামের নতুন কমিটিতে নাহিদ সভাপতি এবং আরমান সম্পাদক নির্বাচিত মাগুরার কাটাখালি স্কুলে তথ্য অফিসের চলচ্চিত্র প্রদর্শন ও কুইজ প্রতিযোগিতা মহম্মদপুরে মান্নান-লিটন আওয়ামীলীগের সভাপতি-সম্পাদক নির্বাচিত মাগুরা একসঙ্গে তিনটি পুত্র সন্তানের জন্ম দিলেন রাশিদা বেগম প্রধানমন্ত্রীকে লেখা মাগুরার প্রবীণ আওয়ামীলীগ নেতা নুরুজ্জামানের খোলা চিঠি মাগুরায় পিয়ারলেসে ফায়ার সপ্তাহ উপলক্ষে সচেতনতামুলক প্রশিক্ষণ জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেছেন-দেশে দূর্ণীতিবাজ দলবাজ লুটেরারা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে
সে দিনের সেই ঈদ_অনন্যা হক

সে দিনের সেই ঈদ_অনন্যা হক

অনন্যা হক : পাড়া বা মহল্লার সাথে আন্তরিকতা ও সখ্যতা শব্দ দুটোর এক বিরাট যোগসূত্র ছিল এক সময়। ঠিক তেমনি এক সময়ে বেড়ে উঠেছি আমি। মানুষের সাথে মানুষের সখ্যতার এক অনন্য দৃষ্টান্ত দেখেছি তখন।

পবিত্র ঈদ এলে এটা বোঝা যেত। ঈদ কত মহিমান্বিত এবং আনন্দময় ভাবে উদযাপন হতো তখন, সকলের মনেই তার রেখাপাত আঁকা হয়ে আছে।

সময়ের সাথে জীবন অনেক পাল্টে গিয়েছে। সেদিনের সেই ঈদের আমেজের রেশ এখনও মনে বয়ে বেড়াই।

ঈদে নতুন পোশাক এক চিরন্তন আনন্দ ও ঐতিহ্য। তখন ঘরে ঘরে প্রাচুর্যের এত ব্যাপকতা ছিল না।তাই পোশাকের বাহুল্যও ছিল সীমিত।সারা বছর অপেক্ষা করে ঈদে একটা নতুন জামার জন্য আমরা উন্মুখ হয়ে থাকতাম।

ঐ জামা কেন্দ্রিক আনন্দের ব্যাপ্তিও থাকতো কয়েক দিন ধরে।

মনে পড়ে পোশাক বানিয়ে লুকিয়ে রাখার কথা।ঈদের আগে কেউ কাউকে দেখাতে চাইতো না। যেন আগে দেখে ফেললে কি বিশাল ক্ষতি। কি নিস্পাপ সরল আবেগ ছিল তখন মনে! এখনকার প্রজন্মের কাছে যা অত্যন্ত হাস্যকর বলে মনে হবে।

রোজার শুরু থেকে শুরু হতো ঈদের আমেজ।ঈদ যত কাছে এগিয়ে আসতো, ভেতরে এক টানটান খুশির হাওয়া বয়ে যেত।মফস্বল শহরের ঈদ গুলো বড় শহর থেকে একটু বেশী জমজমাট ভাবে পালিত হয় সব সময়।শহরের বেশীর ভাগ লোক পরিচিত থাকায় ঈদের জামাত হয় উৎসব মুখর। পরিচিত জনের কোলাকুলির মাধ্যমে হৃদ্যতা বিনিময় এক মনোরম দৃশ্য।

প্রতিটা পাড়া আত্মীয় স্বজন, বন্ধু, প্রতিবেশী দের আনন্দে মুখরিত হয়ে উঠতো। যারা বাইরে কর্মস্থলে অবস্থান করেছে,তাদের নিজ শহর অভিমুখে ছুটে যাওয়া যেমন খুশি, তাদের জন্য অপেক্ষা করে থাকাও তেমন খুশির। এখন এসব আনন্দে যেন অনেকটা ভাটা পড়ে গিয়েছে। অনেক গুটিয়ে গিয়েছে মানুষ নিজেদের গন্ডির ভেতরে জীবনের জটিলতায়। আমাদের সময় যে কোন বাসায় যাতায়াত ছিল অবলীলায়।মানুষ মানুষকে গ্রহণ করতো সানন্দে, এটাই ছিল রেওয়াজ।

ঈদে যতরকম রান্না হোক না কেন, ঈদের সেমাই এর চাহিদা ছিল তুঙ্গে।খাঞ্চা ভরা দুধ সেমাই, জর্দা সেমাই,চালের জর্দা ডেজার্টের অবস্থান টা পুরোপুরি দখল করে রাখতো। এখন মানুষ বৈচিত্রের খোঁজে অনেক ভিন্নতা আনলেও, ঈদ মানেই সেমাই আমাদের মনে উঁকিঝুঁকি দেয়।

ছিল মুরব্বী দের পায়ে হাত দিয়ে সালাম এর প্রচলন, যার সাথে ছিল নিকটাত্মীয়ের কাছ থেকে সালামি প্রাপ্তির এক আনন্দ। আমাদের কাছে যখন খুব অল্প টাকাই ছিল বিরাট এক পাওনার মত।তখন তো অভিভাবকদের মধ্যে সন্তান দের পকেট মানি দেয়ার কোন বিষয়ের তেমন কোন চল ছিল না। টাকা আমাদের কাছে তখন এক দুষ্প্রাপ্য বস্তুর মত।তাই ঐ সামান্য টাকা যথেষ্ট খুশির কারণ ছিল।দশ টাকা সালামি তেও কত আনন্দ হতো। আর নোট টা যদি হতো চকচকে তাহলে তো আরও ভাল।

খাওয়ার পর্ব চলতো বাড়ি বাড়ি ঘুরে ঘুরে, হয়তো নিজের বাড়ি তেই খাওয়া বাকী থেকে যেত ঈদের দিন। ভাইবোন, বন্ধু মহলে চলতো এক লাগাম হীন ইচ্ছে স্বাধীন চলাফেরা।অনেক বিধিনিষেধ শিথিল থাকতো ঈদ উপলক্ষে। সারা দিন ঘোরাঘুরি শেষে, রাতের আকর্ষণ ছিল হানিফ সংকেত এর ইত্যাদি। এক সাথে অনেকে জড় হয়ে উপভোগ করতাম সেই প্রত্যাশিত ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান।

এখন শুরু হয়েছে ঈদের আমেজ সারা দেশে। যখন যেমন করেই পালন করা হোক, প্রতি টা ঈদ মানুষ কে একত্রিত করে এক মিলন উৎসবে পরিণত হয়। ছুটে চলে অগণিত মানুষ শত বাঁধা বিপত্তি পায়ে মাড়িয়ে আত্মহারা হয়ে, দিগ্বিদিক হারা হয়ে মাটির টানে, নাড়ির টানে, ভালোবাসার টানে। কত না রকমারি যানে ছুটে চলে ঈদ উদযাপনে।

ঈদ তো ঈদ, এক পবিত্র উৎসব। শুধু সময়ের পার্থক্য, কিন্তু পালনের মহিমা খুব পবিত্র ভাবেইএখনও মানুষের মাঝে বিরাজমান।

শেয়ার করুন...




©All rights reserved Magura Protidin.
IT & Technical Support :BiswaJit