আজ, মঙ্গলবার | ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ২০শে অক্টোবর, ২০২০ ইং | সকাল ৬:০৯

ব্রেকিং নিউজ :
মাগুরার দুরাননগরে যুবকদের শ্রম বিক্রির অর্থে দরিদ্র মানুষের ঘরে ত্রাণ মহামারি করোনা : হেসে উঠুক আমাদের ভালবাসার পৃথিবী মাগুরায় করোনা রোগী: ভয় নয়, আরও দায়িত্বশীল হই চাউলিয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে ত্রাণ নিয়ে অসহায় মানুষের পাশে সাহেব আলি ছকাতি মাগুরায় ঢাকা থেকে ফেরা আরো এক যুবক করোনা আক্রান্ত গ্রাম লক ডাউন ঘোষণা মাগুরায় ৫ শতাধিক ইমাম মোয়াজ্জিনের মধ্যে এমপি শিখরের নগদ অর্থ ও খাদ্য সহায়তা প্রদান মাগুরায় আশুলিয়া থেকে ফেরত যুবক করোনায় আক্রান্ত গ্রাম লকডাউন মাগুরায় ইঞ্জিনিয়ার মিরাজের নেতৃত্বে ১৪শত পরিবারের মধ্যে ত্রাণ ও স্যানিটাইজার বিতরণ মাগুরাসহ যশোর অঞ্চলে জনসচেতনায় কাজ করে যাচ্ছে সেনা সদস্যরা করোনা প্রতিরোধে মাগুরা সিভিল সার্জনকে জাসদের ৭টি প্রস্তাব
মাগুরায় সংসার বাঁচাতে প্রেমিককে হত্যা করে বাড়ির উঠোনে মাটি চাপা

মাগুরায় সংসার বাঁচাতে প্রেমিককে হত্যা করে বাড়ির উঠোনে মাটি চাপা

মাগুরা প্রতিদিন ডটকম : সংসার বাঁচাতে শেষ পর্যন্ত প্রেমিককে বাড়িতে ডেকে খুন করেছে রাজিয়া সুলাতানা। শুধু তাই নয় স্বামীকে সঙ্গে নিয়ে বাড়ির উঠোনো তোসকে মুড়িয়ে মাটি চাপা দেয়া হয়। তার আগে যত্ন সহকারে দুধের সঙ্গে প্রেমিক পিকুলকে ঘুমের ওষধ খাইয়ে ঘুম পাড়ানো হয়।

পুলিশের কাছে রাজিয়া সুলতানার এমনসব স্বীকারোক্তি দেয়ার পর হত্যাকাণ্ডের দীর্ঘ একমাস পেরিয়ে গত রাত ১টার দিকে শ্রীপুর থানা পুলিশ মাটি খুড়ে লাশটি উদ্ধার করেছে। নিহত প্রেমিক পিকুল হোসেন (৩৮) মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার চৌগাছি গ্রামের উকিল মোল্যার ছেলে।

পুলিশ জানায়, গত ৩ মার্চ ঢাকার গাজিপুর এক নিকটাত্মিয়ের বাড়ি থেকে ফেরার পথে নিখোঁজ হয় পিকুল হোসেন। এ ঘটনায় মামুনুর রশীদ নামে পিকুলের ওই আত্মিয় গাজিপুরের কাশিমপুর থানায় একটি মিসিং ডায়রি করেন। যে ঘটনার সূত্র ধরে মাগুরা পুলিশের একটি টিম পিকুলের মোবাইল ফোনের কললিস্ট ধরে তদন্ত শুরু করে। যেখানে পিকুলের সঙ্গে তার গ্রামের বাড়ির পাশের গ্রাম মহেশপুরের রাজিয়া সুলতানার সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়।

এ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে শুক্রবার শ্রীপুর থানা পুলিশ মহেশপুর গ্রাম থেকে রাজিয়া সুলতানা এবং তার স্বামী কাজী মোশারফ হোসেনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে। এ সময় রাজিয়া সুলতানা পুলিশের জেরার মুখে হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনা থেকে শুরু করে লাশ গুম পর্যন্ত রোমহর্ষক কাহিনীর স্বীকার করে।

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান জানান, রাজিয়া সুলতানার স্বামী গত দুই বছর ধরে কাতারে ছিল। সে সময় রাজিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি হয় পিকুলের। যাওয়া আসাও ছিল নিয়মিত। কিন্তু সম্প্রতি রাজিয়ার স্বামী মোশারফ হোসেন দেশে ফিরলে বিষয়টি তার কাছে ধরা পড়ে। এ অবস্থায় তিনি স্ত্রীকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দিতে চাইলে রাজিয়া নিজের সংসার বাঁচাতে পিকুলকে ধরিয়ে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়। সেই অনুযায়ী ঘটনার দিন ঢাকা থেকে পিকুল যখন বাড়ি ফিরছিল তখন রাজিয়া মোবাইল ফোনে পিকুলেকে বাড়িতে ডেকে নেয়।

রাজিয়াদের উদ্দেশ্য পিকুলকে হত্যা করে লুকিয়ে ফেলবে। সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সারাদিনই তারা নানা ছক তৈরি করে। বাড়ির টিউবওয়েল বিকল হয়ে গেছে এমন কথা প্রতিবেশিদের কাছে প্রচার করে নিজেরাই টিউবওয়েলের পাশে প্রায় ১০ ফুট গভীর গর্ত তৈরি করে।

এদিকে রাজিয়ার আহ্বানে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে পিকুল রাজিয়ার বাড়িতে পৌঁছলে দুধের সঙ্গে তাকে ৮টি ঘুমের ওষধ খাওয়ানো হয়। ওষধগুলো মোশারফ হোসেন কেনেন স্থানীয় বাজার থেকে। ওষধ মিশ্রিত দুধ খাওয়ার পর পিকুল অচেতন হয়ে পড়লে মোশারফ বাড়িতে নিত্য ব্যবহৃত দাও দিয়ে কুপিয়ে খুন করে। পরে তারা দু’জনে মিলে আগে থেকে উঠোনে খুড়ে রাখা সেই গর্তে তোসক মুড়িয়ে মাটি চাপা দেয় তাকে। গর্তেই পিকুলের মোবাইল ফোন থেকে শুরু করে তার সবই মাটি চাপা দেয়া হয়।

শুক্রবার রাতে রোমহর্ষক হত্যাকাণ্ডের এমনসব বর্ণনা পুলিশের কাছে রাজিয়া দেয় বলে জানান ওসি মাহবুব।

মাগুরা পুলিশ সুপার খান মোহাম্মদ রেজোয়ান বলেন, মাগুরার প্রেক্ষাপটে এটি একটি চাঞ্চল্যকর ঘটনা। আসামীদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী লাশ উদ্ধারের পাশাপাশি অনুযায়ী সবকিছুই মিলে যাওয়ায় তাদেরকে আইনের আওতায় নেয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন...




©All rights reserved Magura Protidin.
IT & Technical Support :BiswaJit