আজ, শুক্রবার | ১৪ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ৩০শে অক্টোবর, ২০২০ ইং | সকাল ১০:২১

ব্রেকিং নিউজ :
মাগুরার দুরাননগরে যুবকদের শ্রম বিক্রির অর্থে দরিদ্র মানুষের ঘরে ত্রাণ মহামারি করোনা : হেসে উঠুক আমাদের ভালবাসার পৃথিবী মাগুরায় করোনা রোগী: ভয় নয়, আরও দায়িত্বশীল হই চাউলিয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে ত্রাণ নিয়ে অসহায় মানুষের পাশে সাহেব আলি ছকাতি মাগুরায় ঢাকা থেকে ফেরা আরো এক যুবক করোনা আক্রান্ত গ্রাম লক ডাউন ঘোষণা মাগুরায় ৫ শতাধিক ইমাম মোয়াজ্জিনের মধ্যে এমপি শিখরের নগদ অর্থ ও খাদ্য সহায়তা প্রদান মাগুরায় আশুলিয়া থেকে ফেরত যুবক করোনায় আক্রান্ত গ্রাম লকডাউন মাগুরায় ইঞ্জিনিয়ার মিরাজের নেতৃত্বে ১৪শত পরিবারের মধ্যে ত্রাণ ও স্যানিটাইজার বিতরণ মাগুরাসহ যশোর অঞ্চলে জনসচেতনায় কাজ করে যাচ্ছে সেনা সদস্যরা করোনা প্রতিরোধে মাগুরা সিভিল সার্জনকে জাসদের ৭টি প্রস্তাব
মুক্তিযুদ্ধের স্পর্ধিত এক নাম অধিনায়ক আকবর হোসেন

মুক্তিযুদ্ধের স্পর্ধিত এক নাম অধিনায়ক আকবর হোসেন

জাহিদ রহমান : একাত্তরে মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে স্থানীয় পর্যায়ে যে সব আঞ্চলিকবাহিনী গড়ে উঠে তার মধ্যে অন্যতম শ্রীপুরবাহিনী তথা ‘আকবরবাহিনী’। এই গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক বাহিনী গড়ে উঠেছিল তৎকালীন যশোর জেলার মাগুরা মহকুমার শ্রীপুর থানাতে।

শ্রীপুর থানা আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক এবং শ্রীকোল ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান টুপিপাড়া গ্রামের মিয়া আকবর হোসেনের সুদক্ষ নেতৃত্বে এই বাহিনী গঠিত হয়। এই বাহিনীর অধিনায়ক ছিলেন তিনিই। যুদ্ধের শেষ দিন পর্যন্ত পাক হানাদার এবং তাদের সহযোগীদের বিরুদ্ধে এই বাহিনীকে পরিচালনা করেন অধিনায়ক আকবর হোসেন। তাঁর সুদক্ষ কমান্ডেই বাহিনী পরিচালিত হয়। এই বাহিনীতে নিয়মিত ও সহযোগী হিসেবে ছিল প্রায় এক হাজার মুক্তিযোদ্ধা। সহযোগী হিসেবে কিশোর-তরুণদের বড় অংশ প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন তাঁর সুচিন্তিত উদ্যোগ এবং সাহসের কারণেই।

প্রথমিক পর্যায়ে আওয়ামী লীগ নেতা আকবর হোসেন অপরাপর সহযোদ্ধা মোল্লা নবুয়ত আলী এবং বন্ধু মৌলভী নাজায়েত খোন্দকারকে পাশে রেখে শ্রীপুর থানা আওয়ামী লীগ এবং ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের নিয়ে এই বাহিনীকে সংগঠিত ও সু-সংঘবদ্ধ  করেন। কিন্তু দ্রুতই ঢাকা, খুলনা, চট্টগ্রাম, যশোর, রাজবাড়ি, ঝিনেদা, ফরিদপুরসহ বিভিন্ন জায়গা থেকে বিদ্রোহ করে আসা সেনাবাহিনী, পুলিশ, ইপিআর, মুজাহিদ সদস্যরা এই বাহিনীতে যোগ দিলে বাহিনী আরও শক্তিশালী হয়ে উঠে। পরবর্তীতে আশেপাশের বিভিন্ন থানা থেকে তরুণরা গোপনে এসে এই বাহিনীতে যোগ দেন। যুদ্ধকালীন সময়ে ত্রিশটিরও বেশি ছোট বড় সম্মুখ যুদ্ধ ও প্রতিরোধে অংশ নেন এই বাহিনীর মুক্তিযোদ্ধারা। এই বাহিনী কখনও সম্মুখ আবার কখনও গেরিলা কায়দায় যুদ্ধ করে বিভিন্ন স্থানে পাক বািহনী এবং তাদের দোসরদের পরাস্ত করে।

এই বাহিনীর দুঃসাহসী সব যুদ্ধ মাগুরা, রাজবাড়ি, ঝিনেদার যুদ্ধ ইতিহাসকে গৌরাবান্বিত করেছে। এখনও সাধারণ মানুষের মুখে এই বাহিনীর গল্প শোনা যায়। আকবরবাহিনীর কারণেই একাত্তরে মাগুরার শ্রীপুর থানা কার্যত ছিল মুক্তাঞ্চল। পাকবাহিনী এবং রাজাকাররা কখনই শ্রীপুরে তাই স্থায়ীভাবে সক্রিয় থাকতে পারেনি। এমন কী কোনো ধরনের রাজাকার ক্যাম্প গড়ে তুলতে পর্যন্ত তারা ব্যর্থ হয়। তবে এই বাহিনী বঙ্গবন্ধুর নির্দেশের প্রতি এতোটাই অবিচল ছিল যে, শুধু নিজ এলাকা শ্রীপুরে প্রতিরোধ গড়ে তোলা নয় একই সাথে মাগুরা সদর, ফরিদপুর, রাজবাড়ি, ঝিনেদা মহকুমার বড় অংশ পাক হানাদার মুক্ত করতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে। নিজ এলাকার বাইরে গিয়ে ফরিদপুর, রাজবাড়ি, ঝিনেদার বিভিন্ন স্থানে গিয়ে পাক আর্মি ও রাজাকার ক্যাম্পে হামলা চালিয়ে দখল করে নেয়। স্বভাবতই আকবরবাহিনী পাকহানাদারদের কাছে ছিল এক মহাআতংক। এ কারণেই আকবরবাহিনীর প্রধান আকবর হোসেনকে ধরিয়ে দিতে পুরস্কারও ঘোষণা করে পাকহানদাররা।

একাত্তরে এই বাহিনীর গড়ে উঠা, শত্রু প্রতিরোধ, রণকৌশল, গেরিলা যুদ্ধ দারুণভাবে প্রশংসিত হয়। এই ধারাবাহিকতায় যুদ্ধকালীন সময়ে ৮ নম্বর সেক্টর  কর্তৃক এই বাহিনী বিশেষভাবে স্বীকৃতি লাভ করে।

এই বাহিনী গঠন ও পরিচালনা ও স্বীকৃতিলাভে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন স্বাধীনতা যুদ্ধের অন্যতম রুপকার এবং তৎকালীন এমএনও সোহরাব হোসেন, তৎকালীন মাগুরা মহকুমা আওয়ামী লীগের সভাপতি সৈয়দ আতর আলী, মাগুরা মহকুমা আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক এবং এমএলএ অ্যাডভোকেট মো. আছাদুজ্জামান এবং তৎকালীন ক্যাপ্টেন এটিএম আব্দুল ওয়াহ্হাব।

মুক্তিযুদ্ধ এবং আকবরবাহিনীর আত্মপ্রকাশ
আকবরবাহিনী যাঁর নেতৃত্বে গড়ে ওঠে সেই বীর মুক্তিযোদ্ধা অধিনায়ক আকবর হোসেনের জন্ম মাগুরা জেলার শ্রীপুর উপজেলার খামারপাড়া গ্রামে।

শ্রীপুর উপজেলা মাগুরা সদর উপজেলা থেকে পনোরো কিলোমিটার উত্তরে। প্রথম জীবনে আকবর হোসেন পাকিস্থান বিমান বাহিনীতে চাকরি নিলেও পাকিস্থানীদের বৈষম্যমূলক আচারণের প্রতিবাদ করে ৫৪ সালের ৮ আগস্ট চাকরি থেকে অব্যাহতি নিয়ে নিজ গ্রামে চলে আসেন। এরপর তিনি স্থানীয় সাধারণ মানুষের সেবা করার অভিপ্রায়ে সক্রিয়ভাবে রাজনীতিতে যোগ দেন এবং আওয়ামী লীগ শ্রীপুর থানা সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

১৯৬৫ সালে তিনি নিজ ইউনিয়ন শ্রীকোলের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন এবং টানা ২৪ বছর স্বপদে থাকার অনন্য কৃতিত্ব দেখান। মুক্তিযুদ্ধ শুরুর প্রাক্কালে আকবর হোসেন মিয়া সহযোদ্ধাদের নিয়ে নিজ থানা শ্রীপুরেই ছিলেন। ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষনের পর আওয়ামী লীগ নেতা আকবর হোসেন নিজের দলীয় কর্মী এবং এলাকার তরুণদের নিয়ে যুদ্ধের জন্যে মানসিকভাবে তিনি তৈরিও হতে থাকেন।

২৫ মার্চ রাতে পাক আর্মিরা ঢাকায় নিরীহ বাঙালির ওপর অতর্কিত হামলা চালালে তিনি তৎক্ষণাৎ সহযোগীদের নিয়ে সভা করে থানা সংগ্রাম কমিটি গঠন করেন এবং সাধারণ মানুষকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে অনুরোধ করেন। দ্রুতই নিজ থানা শ্রীপুরের খামারপাড়া গ্রামের সহযোদ্ধা খন্দকার সুজায়েত আলী, মৌলভী নাজায়েত আলী, বরিশাট নিবাসী সাহসী সহযোদ্ধা আওয়ামী লীগ নেতা মোল্লা নবুয়ত আলীসহ শত শত তরুণদের সাথে নিয়ে মাগুরার সর্বত্র পাক হানাদারদের প্রতিরোধের পরিকল্পনা নেন। এরই ধারাবাহিকতায় সংগঠিত তরুণদের বড় একটি দল নিয়ে প্রথমে মাগুরাস্থ আনসার ক্যাম্প দখলে নেন। একই সাথে এই ক্যাম্পে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণও শুরু করেন। মুহুর্তেই আকবর হোসেনের সাহসী নেতৃত্বের কথা ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র। মুক্তিকামী মানুষের মাঝে তাঁকে ঘিরেই নুতন এক প্রাণের সঞ্চার হয়।

মাগুরা, মহম্মদপুর, শালিখা, রাজবাড়ি, পাংশা, শৈলকূপাসহ বিভিন্ন অঞ্চলে তাঁর সাহসী নেতৃত্ব ও ভূমিকার কথা ছড়িয়ে পড়ে। ফলে বিভিন্ন জায়গা থেকে তরুণরা পালিয়ে এসে তাঁর দলে যোগ দিতে থাকে। তাঁর বাহিনী দ্রুতই মাগুরার মুক্তিযুদ্ধের ¯^প¶ের দেশপ্রেমিক সাধারণ জনতার কাছে এক অন্যরকম আস্থায় পরিণত হন।

এদিকে তিনি সহসাই কাছে পান একদল সাহসী  প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত যোদ্ধা। যাঁরা বিভিন্ন ক্যান্টমেন্ট থেকে বিদ্রোহ করে অস্ত্রসহ পালিয়ে এসে তাঁর সাথে দেখা করেন তাঁর বাহিনীতে যোগ দিয়ে বাহিনীকে শক্তিশালী করেন। ফলে অচিরেই তাঁর বাহিনী দারুণভাবে সংগঠিত হয়ে পড়ে। সাহসী অকুতোভয় যে সব মুক্তিযোদ্ধাদের দ্রুত তিনি কাছে পান তাঁরা হলেন-মো. আনারুদ্দিন শেখ (শ্রীকোল, শ্রীপুর) জহরুল আলম মুকুল (শ্রীপুর সদর, মাগুরা),  সেনাবাহিনীর মো. বদরুল আলম (বেলনগর, মাগুরা), চৌধুরী জহুরুল হক (বরিশাট, শ্রীপুর, মাগুরা), ইরাদুল আখতার ফয়েজ (টুপিপাড়া, শ্রীপুর, মাগুরা), খন্দকার আবু হাসান (খামারপাড়া, শ্রীপুর, মাগুরা), খন্দকার আবু হোসেন (খামারপাড়া, শ্রীপুর, মাগুরা), সৈয়দ মারুফ আহমেদ (মাজাইল, শ্রীপুর, মাগুরা), নুরুল হোসেন মোল্লা (কাজলী, শ্রীপুর, মাগুরা), মোল্লা মতিয়ার রহমান (কাজলী, শ্রীপুর, মাগুরা),  হাফিজুর রহমান মাস্টার (খালিয়া, মোহাম্মদুপর, মাগুরা), আব্দুল মান্নান (বালিয়াডাঙ্গা, মাগুরা), শফি জোয়ার্দ্দার (খামারপাড়া, শ্রীপুর, মাগুরা), মুন্সী গোলাম মোস্তফা (বারইপাড়া, শ্রীপুর, মাগুরা), ওলিয়ার মৃধা (খামারপাড়া, শ্রীপুর, মাগুরা), আব্দুল মালেক (আমতৈল, শ্রীপুর, মাগুরা), সিরাজুল ইসলাম খোকন (আমতৈল, শ্রীপুর, মাগুরা), ইন্তাজ আনসার (আমলসার, শ্রীপুর, মাগুরা), আবুল হোসেন (বালিয়াডাঙ্গা, মাগুরা), মনিরুল ইসলাম জেন্টেল (আমতৈল, শ্রীপুর, মাগুরা), হারেজ উদ্দিন (বগুড়া, শৈলকূপা, ঝিনেদা), আব্দুল খালেক (গাড়াগঞ্জ, শৈলকূপা, ঝিনেদা), মো. সুলতান (কাঁচেরকোল, শৈলকূপা, ঝিনেদা), নওশের আলী (দ্বারিয়াপুর, শ্রীপুর, মাগুরা), মো. মোশাররফ হোসেন (আমতৈল, শ্রীপুর, মাগুরা), মো. আনোয়ার হোসেন (কাজলী, শ্রীপুর, মাগুরা) মো. আব্দুর রশিদ (হরিন্দী, শ্রীপুর, মাগুরা), গোলাম মোস্তফা (তারাউজিয়াল, শ্রীপুর, মাগুরা), হাবিলদার জালাল উদ্দিন (বহরপুর, বালিয়াকান্দি, রাজবাড়ি), আব্দুর রাজ্জাক নান্নু (কাশিয়ানি, গোপালগঞ্জ), পুলিশ বাচ্চু মিয়া  (বালিয়াকান্দি, রাজবাড়ি), গোলাম মওলা, (হবিতপুর, শৈলকূপা, ঝিনেদা), সায়েম উদ্দিন কালা (শ্রীপুর সদর, মাগুরা), হবিবর রহমান (গোপালপুর, শ্রীপুর. মাগুরা), আখতার সুলতান (বেষ্টপুর, শ্রীপুর, মাগুরা), শেখ মুক্তাদির (শ্রীকোল, শ্রীপুর, মাগুরা) মকসেদ আলী (শ্রীকোল, শ্রীপুর, মাগুরা), মনোয়ার (নোহাটা, শ্রীপুর, মাগুরা), ইপিআর মনোয়ার হোসেন (বড়বাড়ি. বগুড়া, শৈলকূপা), ইপিআর সিরাজুল ইসলাম (নারুয়া, বালিয়াকান্দি, রাজবাড়ি), মাহবুবর রহমান বাবু (সারঙ্গদিয়া, শ্রীপুর, মাগুরা), আশরাফুল ইসলাম কালা (বরইচারা, শ্রীপুর, মাগুরা), নজরুল ইসলাম রাজু (হরিন্দী, শ্রীপুর, মাগুরা), আব্দুস সাত্তার (পুলিশ) জোকা, শ্রীপুর, মাগুরা, হাফিজুর রহমান (কাজলী, শ্রীপুর, মাগুরা), ছোট কবীর ( বরুনাতৈল, শ্রীপুর, মাগুরা), বড় কবীর (মাগুরা), নুরুল হুদা পল্টু, এফ এফ (জজকোর্ট পাড়া, মাগুরা) আবু ইশা (জজকোর্ট পাড়া, মাগুরা), সুধীর বিশ্বাস, এফএফ ( পারনান্দুয়ালী মাগুরা), সহ আরো অনেকে। যাঁরা সাহসে বীরত্বে ছিলেন সবসময়ই অগ্রগ্রামী। এদিকে প্রতিদিনই এই বাহিনীতে এসে যোগ দিতে থাকেন বিভিন্ন অঞ্চলের তরুণরা। যুদ্ধের শুরুতে এই বাহিনী সংঘটিত হয় এবং পরবর্তীতে একটি পরিপূর্ণ বাহিনী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। এই বাহিনীতে শুধু শ্রীপুরই নয়Ñমাগুরা সদর, মোহাম্মদপুর, শৈলকূপা, পাংশা, বালিয়াকান্দি এবং রাজবাড়ি সদর থানার উলে­খযোগ্য সংখ্যক সৈনিক-পুলিশ-আনসার এবং তরুণ অংশগ্রহণ করে। লোকমুখে খবর পেয়ে দেশের আরো অন্যান্য জায়গা থেকে মুক্তিযোদ্ধারা এসে এই বাহিনীতে যোগদান করে। গ্রামের অনেক সাধারণ কৃষক লাঙ্গল ফেলে এই বাহিনীতে যোগ দিয়ে দেশ স্বাধীনে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হন। এই বাহিনী ‘আকবরবাহিনী’ হিসেবেই জনমানুষ তথা সাধারণ্যের কাছে ব্যাপকভাবে পরিচিতি লাভ করে।

এই বাহিনী গড়ে তুলতে যাঁরা বিশেষভাবে অবদান রাখেন এবং সহযোগিতা করেন তাঁরা হলেন- প্রয়াত শাহবুদ্দিন চেয়ারম্যান (নবগ্রাম), প্রয়াত খোন্দকার সুজায়েত আলী (খামারপাড়া), প্রয়াত খন্দকার নাজায়েত আলী (খামারপাড়া), প্রয়াত আব্দুর রশিদ মিয়া (বিলনাথর), প্রয়াত কাজী ইউসুফ (আঠারোখাদা), প্রয়াত খন্দকার আব্দুল  মাজেদ (শিবরামপুর), প্রয়াত আব্দুর রহিম জোয়ার্দ্দার (শ্রীপুর), প্রয়াত শাহাদত মোল্লা (কাবিলপুর), প্রয়াত মোকাররম আলী চৌধুরী (সারঙ্গদিয়া), প্রয়াত নওশের আলী চৌধুরী (সারঙ্গদিয়া), প্রয়াত ইন্তাজ বিশ্বাস (দ্বারিয়াপুর), প্রয়াত তৈয়ব মাস্টার (চৌগাছী), প্রয়াত হাফিজ মাস্টার (মোহাম্মদপুর), প্রয়াত সৈয়দ আলী মেম্বর  অলংকারপুর, ফরিদপুর ), প্রয়াত আব্দুল জলিল বিশ্বাস (বেলনগর), প্রয়াত কামরুজ্জামান (মীনগ্রাম), প্রয়াত মমিন ফকির (খামারপাড়া), প্রয়াত ডা. সন্তোষ কুমার (খামারপাড়া), ডাক্তার আলী আহমেদ (দাইরপোল), প্রয়াত আলী হোসেন খাঁ (রামনগর), প্রয়াত আবু বক্কার (আলফাপুর), প্রয়াত মাসুদুর রহমান (বরিশাট ব্যাপারীপাড়া), প্রয়াত চেয়ারম্যান ইয়ার উদ্দিন মোল্লা ( নাড়–য়া, রাজবাড়ি), প্রয়াত ডা. হায়াত (পাংশা)। বেঁচে থাকাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেনÑ মোল্লা নবুয়ত আলী (বরিশাট), মাস্টার কাজী ফয়জুর রহমান (তখলপুর), শাহাবুদ্দিন খাঁ (দাইরপোল), আফম আবুল ফাত্তাহ (বেলনগর), আলী হোসেন মিয়া (খামারপাড়া), আবুল হোসেন (বড়তলা) সহ অন্যান্যরা।

আকবর বাহিনীর যুদ্ধ
একাত্তরে পাকবাহিনীর সামনে দ্রুতই আকবরবাহিনী এক মহাআতঙ্ক হিসেবে পরিগণিত হয়। একের পর এক আক্রমণ চালিয়ে পাকহানাদারদের দুর্গ তছনচ করে ফেলে এই বাহিনীর সাহসী যোদ্ধারা। বিশেষ করে শ্রীপুর থানা দখল, শৈলকুপা থানা আক্রমণ, রাজবাড়ির বালিয়াকান্দির রামদিয়াতে পাকসহযোগী চাঁদ খাঁর বাড়ি আক্রমণ, ইছাখাদা ও মাগুরা আনসার ক্যাম্পে হামলা, আলফাপুরের যুদ্ধ এবং বিনোদপুর রাজাকার ক্যাম্প আক্রমণ-এ সবই অধিনায়ক আকবর হোসেনের সুদক্ষ দিকনির্দেশনা ও নেতৃত্বে পরিচালিত হয়। অক্টোবরে বিনোদপুরের যুদ্ধে এই বাহিনীর অন্যতম শ্রেষ্ঠ মুক্তিযোদ্ধা জহরুল আলম মুকুল গুলিবিদ্ধ হয়ে শহীদ হন।

১৯৭১ সালের ৫ জুন শ্রীপুরের নিকটবর্তী রাজবাড়ি মহকুমার বালিয়াকান্দি থানার রামদিয়াতে পাকবাহিনীর অন্যতম সহযোগী চাঁদ খাঁর বাড়িতে এই অভিযান ছিল সর্বপ্রথম।

শ্রীপুর থেকে এই বাহিনীর বড় একটি যোদ্ধা দল এই অভিযান চালাতে শ্রীপুর থেকে পায়ে হেঁটে বালিয়াকান্দি থানার রামদিয়াতে আসে। অতঃপর আকবরবাহিনীর সাহসী যোদ্ধারা সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে বিহারী চাঁদ খাঁ ও তার সহযোগীদেরকে খতম করতে সক্ষম হন। পরের দিন ৭ জুন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে এই বাহিনীর সফল অভিযানের খবরটি গুরুত্ব সহকারে প্রচার হয় এবং এত করে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা দারুণভাবে শক্তি সঞ্চয় করতে সমর্থ হন। এরপর একের পর এই বাহিনী শৈলকূপা থানা, শ্রীপুর থানা আক্রমন করে দখলে নেন। আলফাপুরের যুদ্ধে অংশ নিয়ে পাক হানাদারদের পরাস্ত করেন। এছাড়াও ইছাখাদা রাজাকার ক্যাম্প, মাগুরা আনসার ক্যাম্পে হামলা চালিয়ে পাকসেনাদের পরাস্ত করেন। তবে অক্টোবওে মাগুরার মহম্মদপুর থানার বিনোপুরে রাজাকার ক্যাম্প উড়িয়ে দিতে গিয়ে এই বাহিনীর চৌকষ এবং সাহসী মুক্তিযোদ্ধা জহুরুল আলম মুকুল শহীদ হন।

প্রতিটি যুদ্ধেই আকবরবাহিনী নিজস্ব কৌশল অবলম্বন করতো। বিশেষ করে পাকিস্তানের আধুনিক সমরাস্ত্রের সামনে লোকায়ত সব কৌশল প্রয়োগ করে আকবরবাহিনীর যোদ্ধারা একের পর এক বিজয় ছিনিয়ে আনতো। এই কারণেই এই বাহিনীর ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ছিল একেবারেই কম। এই বাহিনী পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে আলফাপুর, মাশালিয়া, খামারপাড়া, কাজলী, গোয়ালপাড়া রণাঙ্গনে মুখোমুখি যুদ্ধ করে পাক হানাদারদের জানমালের বহু ক্ষয়ক্ষতি করে। অনেক পাকসেনার লাশ নদী দিয়ে ভেসে গেছে। অনেকে আহত হয়েছে। বহু পাক অফিসারও এসব যুদ্ধে মারা যায়। একজনের লাশ তারা লাঙ্গলবন্ধে কবরস্থ করে যায়। শ্রীপুরের নাকোলের যুদ্ধে একজন পাক কর্ণেলসহ কয়েকজন পাক সেনা নিহত হয়।

আকবরবাহিনীর মুক্তিযোদ্ধাদের গুলির আঘাতে আধুনিক পাক সাঁজোয়া গাড়ি পাঙচার হয়ে যায় যা তারা ফেলে রেখে পালিয়ে গিয়ে আত্মরক্ষা করে। সাঁজোয়া গাড়িটি সাহসী দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ মুক্তিযোদ্ধারা ঠেলে প্রায় দু’মাইল দূরে নিয়ে যায়। বিনোদপুর, বরিশাট, মাগুরার ইছাখাদা, মাগুরার আনসার ক্যাম্প, রাজাকার ও পাকসেনাদের আস্তানাতেও এই বাহিনী তীব্র আঘাত হানে। মহম্মদপুর ও বিনোদপুর যুদ্ধে অনেক রাজাকার ও দোসররা আহত হয়। শ্রীপুর থানা তিন তিনবার আক্রমণ করে থানার সমস্ত অস্ত্র পুলিশদের নিকট থেকে ছিনিয়ে নেওয়া হয়। টুপিপাড়াতে এ বাহিনী স্থায়ীভাবে ক্যাম্প গড়ে তুলেছিল। শ্রীপুর থানার ওসি (অফিসার ইনচার্জ) হিসাবে বীরমুক্তিযোদ্ধা আকরাম হোসেনকে নিয়োগ দেওয়া হয়, যা একটি বিরল দৃষ্টান্ত হিসাবে চিহ্নিত করা যায়।

খামারপাড়াতে ছিল মুক্তিযোদ্ধাদের ট্রেনিং কাম্প। এই ক্যাম্পে পাঁচশ যুবককে ট্রেনিং দিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের শক্তি বৃদ্ধি করা হয়েছিল। শ্রীপুর থানার চারপাশে যাতে আরও মুক্তিযোদ্ধার দল গড়ে ওঠে সে লক্ষ্যে শৈলকূপা থানা থেকে উদ্ধারকৃত ৫৭টি রাইফেলের বড় একটি অংশ দিয়ে মুক্তিযোদ্ধা কামরুজ্জামান, বিশারত, উজির, মন্টু, আলম ও আকামতদের মধ্যে ভাগ করে দেওয়া হয় যাতে তারাও বাহিনী গড়ে তুলতে পারে। এভাবে ঝিনাইদহের পানামির আফজাল ইপিআরকে অস্ত্রপাতি ও গোলাবারুদ দিয়ে একটি দল গঠন করে দেওয়া হয়। মাগুরার হাজীপুরেও একটি বড় মুক্তিযোদ্ধা দল খাড়া করে দেওয়া হয়। একইভাবে ফরিদপুর-রাজবাড়ীর জামালপুর, বহরপুর, ডুমাইন এলাকায় হাবিলদার জালাল (বেঙ্গল রেজিমেন্ট) কে অস্ত্র ও গোলাবারুদ দিয়ে একটি মুক্তিযোদ্ধা দল গঠন করে দেওয়া হয়।

বালিয়াকান্দি থানার সিরাজুল ইসলাম ইপিআর (সিগন্যাল) কে দিয়ে ঐ অঞ্চলেও একটি দল দাঁড় করিয়ে দেন অধিনায়ক আকবর হোসেন। পাংশাতে আব্দুল মতিন দিয়েও একটি দলের অনুমতি দিয়ে যুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে বলেন। এছাড়া ইপিআর মান্নানকে দিয়েও মাগুরার পূর্বাঞ্চলে আরও একটি দল করার স্বীকৃতি দেন। মাগুরা মহকুমার ও আশেপাশে ভারতে থেকে আগত কমান্ডার ও তাদের দলের মুক্তি এফএফ ( ফ্রিডম ফাইটার) এবং সেনারা এবং মুজিববাহিনীর মুক্তিসেনারা মিলে একটা বড় দল হয়ে দাঁড়ায়। এভাবে শ্রীপুর থানার চারপাশে প্রতিরক্ষা ব্যূহ রচনা করা হয়েছিল, যেন পাক সেনারা যেকোন দিক থেকে আক্রমণ করলে এইবাহিনী যেনো তাদেরকে দ্রুত সহযোগিতা করতে পরে।

শ্রীপুরবাহিনী তথা আকবরবাহিনীর স্বীকৃতি
মুক্তিযুদ্ধে এই বাহিনীর যুদ্ধ পরিচালনা এবং কৌশলের প্রতি আস্থা দেখিয়ে সেক্টর আট-এর সেনানায়ক মেজর আবুল মঞ্জুর সনদের মাধ্যমে এই বাহিনীকে ‘শ্রীপুরবাহিনী’ এবং মিয়া আকবর হোসেনকে বাহিনীর অধিনায়ক হিসেবে স্বীকৃতি দান করেন। শ্রীপুরের আরেক বীর মুক্তিযোদ্ধা তৎকালীন ক্যাপ্টেন এটিএম আব্দুল ওয়াহাব এই স্বীকৃতি দানে অগ্রগণ্য ভূমিকা পালন করেন। মুজিবনগর সরকার এই বাহিনীকে যুদ্ধকালীন সময়েই স্বীকৃতি দেয়। শুধু এই নয়, সেক্টর আট-এর সেক্টর কমান্ডার মো. আবুল মঞ্জুর এবং এবং মেজর এমএন হুদা ব্যক্তিগত ভাবে চিঠি প্রেরণ করে আকবর হাসেনের ভূয়শী প্রশংসা করেন।

একাত্তরের ২৭ অক্টোবর মেজর এমএন হুদা চিঠিতে লেখেন-মি. আকবর. আপনাকে লিখতে পেরে আমি যারপরনাই আনন্দিত। কারণ আপনার দুঃসাহসিক বীরত্বে যে আঞ্চলিক বাহিনী সংগঠিত করেছেন এবং আমাদের উভয়ের চির শত্রæর সাথে যুদ্ধে লিপ্ত থাাকয় আপনাকে উষ্ণ অভিনন্দন। আপনার গোলাবারুদের চাহিদা যথাসময়ে জেনেছি। মেজর মঞ্জুর এবং আমি উভয়েই অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে নিয়েছি। ইনশাল্লাহ্ অতি সত্বর আপনি আপনার চাহিদা ছাড়াও অধিক পাইবেন। গোপনীয়তার কারণে উপস্থিত এর চেয়ে বেশি কিছু বলতে পারছি না। ইতোমধ্যে কিছু জরুরি প্রয়োজন মিটানোর মত গোলাবারুদ ও মাইন পাঠাচ্ছি, যাতে বিশেষ করে আমাদের ছেলেরো যুদ্ধ চালিয়ে যেতে পারে। আমাদের ছেলেরা যে প্রতিরোধ সৃষ্টি করেছে তা গত রাতে আমি জেনেছি। যেসব ছেলেরা এমন দুঃসাহসিক যুদ্ধ করেছে তাদের সবাইকে মোবারকবাদ জানাই। মেহেরবানি করে এর আগে যতগুলো প্রতিরোধ গড়ে তোলা হয়েছে তার বিস্তারিত প্রতিবেদনও পাঠারেন। আরও খেয়াল রাখবেন, য সমস্ত ঘটনার বিবরণ আমারে কাছে পাঠানো হয় তা যেন বিশ্বাসযোগ্য হয়। বিশেষ করে শত্রæ সৈন্য হতাহতের ব্যাপারে। গণবাহিনীতে যেসব ছেলেদের পাঠানো হয়েছে তারা খুবই তরুণ ও অপরিপক্ক। তাদেরকে কোন বড় ধরনের তৎপরতায় সম্পৃক্ত করা উচিত নয়, আমাদের মুক্তিফৌজ হিসেবে সুনামের ওপর খুবই মন্দ প্রভাব ফেলবে। এব্যাপারে আপনি বিশেষভাবে বোঝাবেন যে, তারা যেন অপারেশনের মিলিটারিদের ওপর নজর রাখে। বেসামরিক ব্যাপার তাদের সম্পৃক্ত করবেন না।

আমাদের ছেলেরা যে মিলটিারি অপারেশনের ব্যাপারে ক্ষিপ্র গুরুত্বসম্পন্ন হয়। আক্রমণ করে এবং বুদ্ধি প্রয়োগের মাধ্যমে শত্রæদের নাজেহাল করে। তারা যেন সম্মুখ যুদ্ধে না যায়। তারা এ ধরনের যুদ্ধের জন্য প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত নয়, এছাড়া তারা উপযুক্ত অস্ত্রেও সজ্জিত নয়। তাদেরকে কেবল শত্রæর ওপর রেইড করার কাজে নিয়োগ করবেন। আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে, যদি গণবাহিনীর ছেলেরা এবং সৈনিকগণ দেশের অভ্যন্তরে তাদের কর্মতৎপরতা হাসিল করতে পারে তাহলে অতিসত্বর দেশ স্বীধীন হবে।

মি. আকবর, সেদিন আর বেশি দূরে নয়, যেদিন আমরা আমাদের ঘৃণ্য শত্রæদেরকে নিপাত করতে ও অন্যায়-অবিচারের প্রতিশোধ গ্রহণে সমর্থ হব ইনশাল্লাহ। আপনার বিশ্বস্ত, এমনএন হুদা মেজর। যুদ্ধকালীন সময়ে আওয়ামী লগি নেতা তোফায়েল আহমেদসহ আরও অনেকে আকবর হোসেন সাথে যোগাযোগ করে তাঁকে সমস্ত ধরনের সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস দেন।

এদিকে আকবরবাহিনী এতোটাই সংগঠিত ছিল যে পাকবাহিনীর সমস্ত রণকৌশলকে বৃদাঙ্গুলি দেখিয়ে ৭ ডিসেম্বর তারা গোটা মাগুরা মহকুমাকে স্বাধীন এলাকা হিসেবে ঘোষণা করে। ঐদিন আকবরবাহিনীর বীর মুক্তিযোদ্ধারা দলে দলে এসে মাগুরা নিজেদের দখলে নেয়।

একটি ইতিহাসের মৃত্যু
মুক্তিযুদ্ধে আকবর হোসেন এবং তাঁর বাহিনীর অবদান অসামান্য। যুদ্ধের নয় মাস আকবর হোসেন যেভাবে যোগ্য, দক্ষ, সাহসী নেতৃত্ব দিয়ে একটি সুশৃক্সখল আঞ্চলিক বাহিনী পরিচালনা করেন তা দৃশ্যত বিরল এবং অভাবনীয়। যুদ্ধকালীন সময়ে তিনি একবারের জন্যেও ভারতে যাননি। নিজ দেশের মাটিতে থেকে যুদ্ধের নেতৃত্ব দিয়েছেন এবং মুক্তিযোদ্ধাদের এক ছাতার নিচে রেখেছেন। শুধু পাকবাহিনী আর তার সহযোগীদের প্রতিরোধ বা পরাস্ত নয়, দস্যু ডাকাতদেরও এই বাহিনী শক্ত হাতে দমন করে এলাকার সাধারণ মানুষের জান মাল রক্ষা করেন। বিশেষ করে হিন্দুদের জানমাল রক্ষায় তিনি অনবদ্য ভূমিকা রাখেন। শুধু এই নয়, যুদ্ধের পরে হিন্দুরা বাড়ি ঘরে ফেরত এসে নিজেদের জমিতে চাষবাস করার সাহস না পেলে তিনি সম্প্রীতি বাড়ানোর লক্ষ্যে হিন্দু মুসলমানদের যৌথভাবে জমিতে চাষ করার উদ্যোগ নেন। এই প্রক্রিয়ায় একদিন শত শত হিন্দু মুসলামান একসাথে জমিতে চাষ করার জন্য লাঙল নিয়ে বিলে নামেন।

এ কথা  অনস্বীকার্য যে একাত্তরে আকবরবাহিনীর জন্ম না হলে মাগুরা মহকুমাতে পাকবাহিনী কর্তৃক আরো বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতি হতো। আকবরবাহিনীর বীরযোদ্ধাদের কারণেই শ্রীপুর থানা ছিল মুক্তাঞ্চল এবং জনগণের জন্যে সবচেয়ে নিরাপদ আশ্রয়স্থল। শ্রীপুরে রাজাকারদের কোনো প্রভাব প্রতিপত্তিও ছিল না। উল্টো শ্রীপুরে প্রবেশ করতেই রাজাকার ভয় পেত। এ কারণেই বিভিন্ন জায়গা থেকে ভয়ার্ত মানুষ এসে আশ্রয় নিয়েছিল শ্রীপুর থানার বিভিন্ন গ্রামে, পাড়া-মহল্লাতে।

২০১৫ সালের ২ মে না ফেরার দেশে চলে যান আকবরবাহিনীর জন্মদাতা, মুক্তিযুদ্ধের কিংবদন্তী, স্পর্ধিত ইতিহাস অধিনায়ক আকবর হোসেন। মৃতুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৯ বছর। মৃত্যুঅব্দি তিনি ছিলেন মাগুরা জেলার শ্রীপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। মৃত্যুর পরেরদিন সকাল ১১টায় হাজার হাজার বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং অনুসারীদের উপস্থিতিতে তাঁর নামাজে জানাযা সম্পন্ন হয় খামারপাড়া উচ্চবিদ্যালয় মাঠে।

জানাযা শেষে তাঁকে দাফন করা হয় খামারপাড়াস্থ পারিবারিক গোরস্থানে। তাঁর জানাযায় সেদিন মানুষের ঢল নেমেছিল। শতসহস্র মুক্তিযোদ্ধা আর সাধারণ মানুষ ছুটে এসেছিলেন ঝিনেদা, যশোর, রাজবাড়ি, ফরিদপুর অঞ্চল থেকে। প্রিয় অধিনায়ককে শেষবারের মতো শ্রদ্ধা জানাতে দূর দূরান্ত থেকে ছুটে এসেছিলেন অগুনতি সাধারণ নারী-পুরুষ। জানাযায় সমবেত হাজার হাজার মানুষের উপস্থিতিই সেদিন প্রমাণ করে অধিনায়ক আকবর হোসেন কতোটা সাধারণ মানুষের কাছে শ্রদ্ধেয় এবং জনপ্রিয় ছিলেন। তবে দুঃখজনক হলেও সত্য এই বাহিনীর স্মৃতি ধরে রাখতে এখন পর্যন্ত মাগুরাতে কোনো স্মৃতি স্মারক গড়ে তোলা হয়নি।

জাহিদ রহমান: সাংবাদিক-গবেষক

শেয়ার করুন...




©All rights reserved Magura Protidin.
IT & Technical Support :BiswaJit